শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১   Saturday, 23 January 2021.  



 খেলা


আমাদের প্রতিদিন

 Dec-17-2020 10:04:56 PM


 

No image


ক্রীড়া ডেস্ক:

সাকিব-তামিমসহ বাংলাদেশের সুপারস্টার ক্রিকেটারদের গুরুর নাম মোহাম্মদ সালাউদ্দিন। জাতীয় দলের কোচিং স্টাফে দেখা না গেলেও যে কোনো ঘরোয়া আসরেই তার চাহিদা তুঙ্গে। চলতি বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে তিনি গাজী গ্রুপের কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। কাল শুক্রবার তার দল ফাইনাল খেলবে। দেশের সফলতম এই কোচ নিজেদের পারিশ্রমিক নিয়ে লজ্জিত। ঠিক এই কারণেই তিনি চান না, আর কেউ কোচ হিসেবে ক্যারিয়ার গড়ে তুলুক।

আজ বৃহস্পতিবার মিরপুরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে সালাউদ্দিন বলেন, 'আমরা "ই" গ্রেডের মানুষ, সহকারী কোচরা হয়তো "এফ" গ্রেডের মানুষ। ট্রেইনার "জি" বা "এইচ" অথবা এমন হবে আরকি। আমার মনে হয় সঠিক মূল্যায়ন করা উচিত। আমাদের কোচদের মূল্যায়ন না করা মানে হচ্ছে টিমের প্রতি আমাদের কোনো ইমপ্যাক্ট নাই। আমরা আসলে আছি শুধু একটা ম্যাচ অথবা একটা টুর্নামেন্ট চালিয়ে দেওয়ার জন্য!'

বঙ্গবন্ধু কাপে 'এ' ক্যাটাগরির ক্রিকেটাররা পাচ্ছেন সর্বোচ্চ ১৫ লাখ টাকা করে। সর্বনিম্ন 'ডি' ক্যাটাগরির খেলোয়াড়রা পাচ্ছেন ৪ লাখ টাকা। অথচ কোচদের ক্ষেত্রে এই বেতন বৈষম্য চোখে পড়ার মতো। প্রধান কোচদের পারিশ্রমিক 'ডি' ক্যাটাগরির প্রায় অর্ধেক! এছাড়া সহকারী কোচরা পাচ্ছেন দেড় লাখ টাকার মতো। ফিজিও-ট্রেনারদের সম্মানীর হার আরও কম। তবে গাজী গ্রুপে চাকরির সুবাদে সালাউদ্দিন কোনো পারিশ্রমিক নিচ্ছেন না। একইসঙ্গে তিনি কাউকে কোচিং পেশায় দেখতেও চান না।

সালাউদ্দিন বলেন, 'আমি এখানে কোনো পারিশ্রমিক নিচ্ছি না। গাজী গ্রুপে আমি চাকরি করি। কোচের পারিশ্রমিকের ব্যাপারে আমি খুব লজ্জিত। আমি সারাজীবনই চেয়েছি বাংলাদেশে যেন কোচেরা আসে, আরও খেলোয়াড় আসুক, যারা কোচিং করতে চায়। তারা যেন একটা ভালো স্ট্যাটাস নিয়ে বাঁচতে পারে। এ ধরণের পারিশ্রমিকে কখনই কোন ছেলেকে বলব না তোমরা কোচিংয়ে আস। দেখেন, আমরা "ই" গ্রেডের মানুষ। "ডি" গ্রেডের একটা খেলোয়াড় যা পাচ্ছে, একজন কোচ কিন্তু সেটা পাচ্ছে না। তাহলে কেন আমি আরেকজনকে বলব কোচিং পেশায় আসতে?'



আজকের রংপুর


No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image






 

 

 

 

 

 
সম্পাদক ও প্রকাশক
মাহবুব রহমান
ইমেইল: mahabubt2003@yahoo.com