মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বার ২০২১   Tuesday, 30 November 2021.  



 বাংলাদেশ


আমাদের প্রতিদিন

 Oct-17-2021 07:59:58 PM


 

No image


তারাগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি:

মমতাময়ী মায়ের কোলে ঘুমিয়ে আছে ১৪দিন বয়সের ফুটফুটে একটি কন্যা সন্তান। জন্মের পর ওই ফুটফুটে শিশুটি পৃথিবীর আলো বাতাস, মমতাময়ী মায়ের ভালবাসা পেলেও বাবার আদর সোহাগ এখনো পায়নি। ভবিষৎ বাবার একটু ভালবাসার পরশ পাবে কিনা সৃষ্টিকর্তা ছাড়া নিস্পাপ শিশুটি অজানা। 

রংপুরের তারাগঞ্জে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ধর্ষণের ফলে একটি কন্যা সন্তান জন্ম দিয়েছে স্বামী পরিত্যক্তা এক নারী। ধর্ষণের ঘটনায় গত ৪ সেপ্টম্বর ধর্ষণকারী তারাজুল ইসলামকে অভিযুক্ত করে ধর্ষিতা ওই নারী তারাগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়ের করার দীর্ঘ দিন পরেও ধর্ষককে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এরই মধ্যে গত ৩ অক্টোবর রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে একটি ফুটফুটে কন্যা সন্তানের জন্ম দেন ওই নারী।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ১১ বছর পূর্বে বিয়ে হয় ওই নারীর। ৬ বছর বয়সী তার একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। স্বামীর মানসিক সমস্যার কারনে তার পরিবারের পক্ষ থেকে তালাক দেন স্বামীকে। এরপর থেকেই বাবার বাড়িতে থেকে এলাকায় কাজ কর্ম করেই জীবিকা নির্বাহ করতেন তিনি।

বাবার বাড়িতে অবস্থানকালে উপজেলার হাড়িয়ারকুঠি ইউনিয়নের খারুভাজ দক্ষিণপাড়া গ্রামের করিম উদ্দিনের ছেলে তারাজুল ইসলাম (৪২) প্রতিবেশি হওয়ার সুবাদে ওই নারীর সাথে সখ্যতা গড়ে তুলেন। গত ৪ জানুয়ারি ওই নারীর পরিবারের কেউ বাড়িতে না থাকার সুযোগে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে জোর পূর্বক ধর্ষণ করেন এবং ঘটনাটি কাউকে না জানানোর জন্য নিষেধ করেন। এরপর থেকে  বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ওই নারীকে একাধিকবার ধর্ষণ করেন অভিযুক্ত ধর্ষক তারাজুল ইসলাম। ধর্ষণের ফলে ওই নারী ৭ মাসের অন্তঃসত্তা হয়ে পড়লে ধর্ষককে বিয়ের জন্য চাপ সৃষ্টি করলে ধর্ষক কালক্ষেপন করতে থাকলে ওই নারী ঘটনাটি তার পরিবারের লোকজনের কাজে জানান। এ ঘটনায় স্থানীয়ভাবে শালিসে ধর্ষক তারাজুল ইসলাম ওই নারীকে ধর্ষনের কথা স্বীকার করলেও কৌশলে পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় ধর্ষিতা ওই নারী  গত ৪ সেপ্টম্বর ধর্ষণকারী তারাজুল ইসলামকে অভিুক্ত করে ধর্ষিতা ওই নারী তারাগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। মামলার পর পুলিশ অভিযুক্ত আসামী তারাজুল গ্রেফতার করার জন্য বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালালেও তাকে গ্রেফতার করতে পারেনি। এরই মধ্যে ওই নারী গত ৩ অক্টোবর রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে একটি ফুটফুটে কন্যা সন্তানের জন্ম দেন ওই নারী। ওই নারী সাথে কথা হলে জানায়,মোক ভাত কাপড় তারাজুলোক দিবার নাগবে না। খালি মুই মোর ছওয়াটার পিতৃ পরিচয় দেউক।

স্থানীয় ইউপি সদস্য নজরুল ইসলামের সাথে গত শনিবার (১৬ অক্টোবর) কথা হলে তিনি বলেন, ঘটনাটি মীমাংসা করার জন্য অনেক চেষ্টা করেছি। ওই নারীকে ধর্ষণের কথা তারাজুল গ্রাম্য শালিসে স্বীকারও করছেন। কিন্তু আর তারাজুলের পাত্তা পাওয়া যাচ্ছে না। এরই মধ্যে ওই নারীর একটি মেয়ে বাচ্চা হয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও তারাগঞ্জ থানার এস আই মশিউর রহমানের সাথে রোববার (১৭ অক্টোবর) দুপুরে কথা হলে তিনি বলেন, ওই ধর্ষিতা নারীর বাচ্চা প্রসবের খবর পেয়ে রংপুর হাসপাতালে গিয়ে শিশুটির রক্ত সংগ্রহ করে ডিএনএ পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। এবং আসামী গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।  


No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image

আজকের রংপুর


No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image
No image






 

 

 

 

 

 
সম্পাদক ও প্রকাশক
মাহবুব রহমান
ইমেইল: mahabubt2003@yahoo.com