পীরগঞ্জের ১৭ কৃষকের স্বপ্ন কেড়ে নিলো কীটনাশক কোম্পানি জেনেটিকা

আমাদের প্রতিদিন
2024-02-27 16:23:21

'ক্ষতিপূরণের অপেক্ষায় ফুল কপি চাষিরা '

পীরগঞ্জ (রংপুর)প্রতিনিধিঃ

রংপুরের পীরগঞ্জে ফুল কপি চাষিদের স্বপ্ন কেড়ে নিলো জেনেটিকা কোম্পানির ছত্রাক নাশক কীটনাশক এগবেন % ৫০ এফ। এই কোম্পানির ছত্রাক নাশক ওষুধ প্রয়োগের ফলে ১৭ জন  চাষির ১২  বিঘা জমিতে ফসল বিনষ্ট হওয়ায় হতাশ হয়ে পড়েছেন।  উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের আব্দুল্লাপুর কৃষি পল্লীর কালসাদারা  বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। গতকাল সোমবার  সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার আব্দুল্লাপুর কালসাদারা বাজার এলাকা ও সংলগ্ন সাদুল্লাপুর সীমানায় ফুল কপি  চাষীদের জমিতে চারা গাছের মাথা পুড়িয়ে কুঁকড়ে গেছে। চাষিরা কাঙ্খিত ফসল উৎপাদনে মুখ থুবড়ে পড়েছে। দীর্ঘদিনের শ্রমের ফসল ও কৃষকের স্বপ্ন ভেস্তে যাচ্ছে।

কপি চাষি আব্দুল্লাপুর গ্রামের ক্ষতিগ্রস্থ  ছাদেকুল ইসলাম জানান, আমি বাজার এলাকায় ১ বিঘা জমি কন্টাক নিয়ে ফুল কপির চাষ করেছি। এতে প্রায় ৪০ হাজার টাকা ব্যায় হয়েছে। এখন আমি জমির মালিক কে কি দেই আর আমার আবার করতে গিয়ে ঋণের টাকা কোথায় পাই। ছোট সংসার আমার ফসলের ক্ষতিপূরণ না পেলে লোকসানের বোঝা ঘাড়ে নিয়ে এলাকা ছেড়ে পালাতে হবে।

ফুল কপি চাষি লাট্টু মিয়া, শফিকুল ইসলাম, আফজাল হোসেন বলেন, জেনেটিকা কোম্পানির লোক আমাদের কাছে মুচলেকা দিয়ে চলে যায়। গত বুধবার কোম্পানির বড় বস এসে আমাদের ক্ষতিপূরণ দেবে। এখন কোম্পানির লোকজন  উপজেলা কৃষি বিভাগের পিছনে ঘুরছে। তাদের গাফিলতির কারনে কৃষকদের  আসা ভরসা কপির মতোই বিনষ্ট হয়ে যাবে।

এছাড়াও তারা বলছেন, আমাদের উপজেলার কৃষি বিভাগের লোকজন জেনেটিকা কোম্পানির হয়ে তাদের সুরে কথা বলছে। তারা আমাদের পক্ষে নেই।

কালসাদারা বাজারের হৃদয় টেডার্স এর স্বত্বাধিকারী রেজ্জাকুল মন্ডল জানান, আমার দোকান দেয়ার বয়সে ভালো মানের কীটনাশক ছাড়া ভেজাল কীটনাশক বিক্রি করিনি। নামি-দামি  কোম্পানি জেনেটিকা তাদের প্রডাক্ট এ যে ভেজাল রয়েছে আমার জানা ছিলোনা। এছাড়াও

ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের কথা শুনে আমিও নিজের জমিতে জেনেটিকা কোম্পানির এগবেন % ৫০ এফ  ছত্রাক নাশক ওষুধ প্রয়োগ করি। দুই দিন পরে জমিতে গিয়ে দেখি কপির চাড়া কালো হয়ে গেছে। ধীরে ধীরে চাড়া গাছের মাথা পুড়িয়ে কুঁকড়ে গেছে।

 বিষয়টি নিয়ে জেনেটিক কোম্পানির মার্কেটিং অফিসারকে অভিযোগ করি। অভিযোগ পেয়ে গত ১৫ অক্টোবর কোম্পানির মার্কেটিং অফিসার কালসাদারা বাজারে আসে এবং ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা তার নিকট হইতে ক্ষতিপুরণ দাবি করেন। এ সময় মার্কেটিং অফিসার কৃষকদেরকে ক্ষতিপূরণের আশ্বস্ত করে মুচলেকা দিয়ে চলে যায়। বুধবার ১৮ অক্টোবর কোম্পানির উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষ সরেজমিনে চাষিদের ফসলের ক্ষেত পরিদর্শনসহ ক্ষতিপুরণ দেবার কথা থাকলে কেউ না আসায় কৃষকরা চোখে সরিষার ফুল দেখছে। এদিকে কপি চাষিদের চাপে আমি দোকান খুলতেও পারছি না।

তিনি আরও বলেন, কোম্পানির লোকজন উপজেলা কৃষি বিভাগের অনুকূলে চলে গেছে। যে কারনে তারা আমাকেও কোন পাত্তা দিচ্ছে না। এবিষয়ে জেনেটিকা কোম্পানির মার্কেটিং অফিসারের মোবাইলে ফোন দেয়া হলে তিনি ফোন রিসিভ করেন না।  উপজেলা কৃষি কর্মকতা কৃষিবীদ সাদেকুজ্জামান সরকার জানান, আমরা জেনেটিকা কোম্পানির ছত্রাক নাশক এগবেন % ৫০ এফ এর বোতল ঢাকায় পরিক্ষার জন্য পাঠিয়েছি। রিপোর্ট হাতে পেলে আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত কোন কিছু করার নেই।