উড়ে গেছে মাথা গোঁজার ঠাঁই, খোলা আকাশের নিচেই বসবাস!

আমাদের প্রতিদিন
2024-06-28 11:29:53

আসাদুল ইসলাম, (সুন্দরগঞ্জ) গাইবান্ধা:

আকস্মিক কালবৈশাখী ঝড়ে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন এলাকা। উড়িয়ে নিয়ে গেছে ঘরের টিনের চালা, একের পর এক ভেঙে পড়েছে গাছ।

গতকাল শনিবার ভোর রাতে থেমে থেমে বৃষ্টির পর হঠাৎ শুরু হয় কালবৈশাখী ঝড় ও দমকা হাওয়া। এতে উপজেলায় অন্তত চার শতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। বর্তমানে ক্ষতিগ্রস্ত অধিকাংশ পরিবারের সদস্যরা খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছেন।

২১ মে (রবিবার) বিভিন্ন ইউনিয়নে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার পনেরটি ইউনিয়ন ও একটির পৌরসভার ওপর দিয়ে প্রবাহিত কালবৈশাখী বৃষ্টিপাত ও ঝড়ো হাওয়ায় কমপক্ষে চারশত ঘরবাড়ি, দোকান পাট এবং ৫ হাজার ছোট বড় গাছপালা ভেঙে গেছে। উপজেলার সোনারায়, হরিপুর, তারাপুর ও বেলকা ইউনিয়নে ব্যাপক ক্ষতি সাধন হয়েছে।

পশ্চিম বৈদ্যনাথ ইউনিয়নের গান্ডারপাড় এলাকার ক্ষতিগ্রস্থ মো. সাঈদ আলী ওরফে সাকেদ আলী জানান, ঝড়ের স্থায়িত্ব ছিল ১০ থেকে ১৫ মিনিট। এতেই আমার ঘরের সব উড়ে গেছে। ঘরটি পুরোপুরি শেষ হয়ে গেছে। এখন আমার পরিবার নিয়ে খোলা আকাশের নিচে মাটিতে আছি।

'কায় জানে এমন ঝড় হইবে। সারাদিন গরোমোত (গরমে) অবস্থা কাহিল। আর ভোর হইতে হঠাৎ করি ঝড়-বৃষ্টি শুরু হোইল। বাতাসোতে ঘরের টিনের চাল উড়ি গেইছে। গাছপালা ভাঙ্গা পড়ছে, ধানের ক্ষতি হইছে। এত ক্ষয়ক্ষতি সামলামো কেমন করি? ঝড়োতে হামার সউগ (সবকিছু) শ্যাষ'। কাঁদতে কাঁদতে এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন ক্ষতিগ্রস্থ সাকেদ আলীর স্ত্রী।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ওয়ালিফ মন্ডল জানান, ঝড়ো হাওয়ায় কমপক্ষে ৪০০ ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানগণের মাধ্যমে তালিকা সংগ্রহ করা হচ্ছে।