নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে সংখ্যালঘুর জমি জবরদখল

আমাদের প্রতিদিন
2024-06-04 03:59:59

নীলফামারী প্রতিনিধি:

নীলফামারী কিশোরগঞ্জ সদর ইউনিয়নে জমি সংক্রান্ত মীমাংসিত বিষয় নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে আবারো চরম উত্তেজনা দেখা দিয়াছে। গতকাল মারামারির ঘটনা ঘটেছে, যে কোন সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্সের আশঙ্কা রয়েছে বলে এলাকাবাসীর ধারনা করেছে।

জানা গেছে কিশোরগঞ্জ সদর ইউনিয়নের বানিয়া পাড়া গ্রামের মৃত: খেলু বর্ম্মনের পুত্র হরি বর্ম্মন ৯৯৫,৮০১,৮০৪,৮০৬,৮০৯ ও ৮১০ দাগে সাড়ে ১৫ শতাংশ জমি ক্রয় করেন। ঐ দাগে অপর পক্ষ রাজিব গ্রামের মরহুম সিরাজুল ইসলামের পুত্র বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শামীম আহম্মেদ ২৭ শতাংশ জমি ক্রয় করেন। উল্লেখিত দাগের জমির ভাগ বন্ঠন নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে বিরোধ চলে আসছিল। শামীম আহাম্মদের লোকজন জোর করে হরি বর্ম্মনের জমি জবর দখলের চেষ্টাপ করলে হরি বর্ম্মন বাধ্য হয়ে আইনের আশ্রয় নিয়ে ১৪৪ ও ১৪৫ ধারায় কোটে একটি মামলা করেন। কোট মামলাটি তদন্তের জন্য একজন সহকারী কমিশনার (ভূমি) কে আদেশ করেন। তদন্তকারী কর্মকর্তা মামলাটি তদন্ত করে কোটে প্রতিবেদন দাখিল করেন।

কোট স্বাক্ষী ও বিবাদী পক্ষের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আদেশ প্রদান করেন। এই ঘটনায় কিশোরগঞ্জ সদর ইউনিয়নে সাবেক চেয়ারম্যান আনিছুল ইসলাম (আনিছ) তার কার্যালয়ে দুই পক্ষের মধ্যে জমি সংক্রান্ত বিরোধ মীমাংশা করেন। ঘটনার দিন গত সোমবার ২৫ শে মার্চ হরি বর্ম্মন তার ভোগ দখলীয় জমিতে বেরা দিতে গেলে শামীম গংড়া এতে বাধা দেয়। এই সময়ে দুই পক্ষের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটে। এতে হরি বর্ম্মন সহ তিন জন আহত হয়। আহতরা কিশোরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নেন। এলাকাবাসী জানান এঘটনার বিরোধ মীমাংশা না হলে যে কোন সময় উভয় পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী ঘটনা ঘটতে পারে। এব্যাপারে কিশোরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পলাশ চন্দ্র মন্ডল বলেন ঘটনাটি শুনেছি কিন্তু এখনো কেউ অভিযোগ দেয় নাই।