তীব্র গরমে গলে যাচ্ছে রাস্তার পিচ, জনজীবনে বিপর্যয়

আমাদের প্রতিদিন
2024-06-25 20:18:32

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি:

ঠাকুরগাঁওয়ের মানুষ শীতে অভ্যস্ত হলেও এবারে তীব্র গরমে নাকাল হয়ে পড়েছে তাদের জনজীবন। তীব্র থেকে তীব্রতর তাপমাত্রায় অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে সাধারণ মানুষ। এমন দাবদাহে গলে যাওয়া শুরু করেছে রাস্তার পিচ।

জেলা শহরের বিভিন্ন জায়গা ঘুরে দেখা যায়, শহর থেকে গ্রামে শুধু সূর্যের প্রখর তাপ। তীব্র গরমে রাস্তার পিচ গলে যাওয়া শুরু করেছে। প্রতিদিন আগের থেকে বেশি তাপমাত্রার মুখোমুখি হতে হচ্ছে জেলার সাধারণ মানুষকে।

শহরের রিকশাচালক থেকে শুরু করে গ্রামের মাঠে দিনমজুর ও কৃষক সবাই অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে বৈশাখের এ খরাতাপে। নেই বৃষ্টি অথবা বাতাস। চারিদিকে শুধু তাপপ্রবাহ আর সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস অবস্থা। সেই সঙ্গে হাসপাতালে বেড়ে চলছে শিশু ও বৃদ্ধ রোগীর সংখ্যা৷

পৌর শহরের রিকশাচালক কলিমুল হক বলেন, এমন গরম এর আগে কখনো হয়নি। রাস্তা দিয়ে গাড়ি চালানো যায় না। বাতাসের সন্ধানে কোথাও দাঁড়ালে তার দেখাও মিলে না। লোকজন বেশি বাইরে বের হয় না। আমাদের আয় অনেক কমে গেছে। বাধ্য হয়ে এ রোদে বের হয়েও নিজের পরিবার চালাতে পারছি না।

ছাতা নিয়ে নিজ প্রতিষ্ঠানে যাওয়া ব্যবসায়ী আব্দুল হালিম বলেন, এমন খরতাপ আগে দেখা যেত না। গত দুই সপ্তাহ ধরে অতিরিক্ত তাপমাত্রা দেখা যাচ্ছে। রাস্তার উপর দিয়ে হাঁটলে ঝলসে যাওয়ার মতো অবস্থা। যদি রোদ কমে বা বৃষ্টি আসে তবে একটু স্বস্তি পাওয়া যায়।

নিজ কন্যা সন্তানকে নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া শফিকুল ইসলাম বলেন, তিনদিন ধরে হাসপাতালে ভর্তি আছি। মেয়ের ডায়রিয়াজনিত সমস্যা। এখানে এসে গরমে জীবন আরো অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। আবার ঘনঘন লোডশেডিং তো আছেই। একবারে নাজেহাল অবস্থা।

ঠাকুরগাঁও জেলা সিভিল সার্জন ডা. নুর নেওয়াজ আহমেদ বলেন, বেশ কয়েকদিন থেকে তাপমাত্রা ৩৬ ডিগ্রি পেরিয়েছে। এতে করে হিটস্ট্রোকসহ স্বাস্থ্যঝুঁকি রয়েছে। আমরা অনলাইন ও অফলাইনে সচেতনতামূলক প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি। সেই সঙ্গে জরুরি প্রয়োজন ব্যতীত বাড়ির বাইরে না বের হওয়ার পাশাপাশি পানীয় খাবার বেশি খাওয়ার তাগিদ প্রদান করছি।