চাচা-ভাতিজার দ্বন্দ্বের জের : মন্ত্রীপুত্রের সমর্থককে মারধর করলো মন্ত্রীর ভাই

আমাদের প্রতিদিন
2024-06-21 01:23:36

লালমনিরহাট প্রতিনিধি :

সাবেক সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদের ছেলে রাকিবুজ্জামান আহমেদের সমর্থককে মারধর ও নারী কর্মীদের সঙ্গে অশোভন আচরণ করার অভিযোগ উঠেছে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মাহবুবুজ্জামান আহমেদের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার (১৪ মে) রাতে কালীগঞ্জ থানায় ও রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন আনারস প্রতীকের প্রার্থী রাকিবুজ্জামান আহমেদ।

এর আগে (১৪ মে) বিকেলে লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার কাশীরাম গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পরেই সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার জহুরুল ইমামসহ কালীগঞ্জ থানার ওসি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তা বরাবর দাখিলকৃত অভিযোগ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ২১ মে অনুষ্ঠিত হবে। এ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে লালমনিরহাট-২ (আদিতমারী-কালীগঞ্জ) আসনের এমপি ও সাবেক সমাজকল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদের ছেলে রাকিবুজ্জামান আহমেদ ও তার সহোদর ছোট ভাই সদ্য সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মাহবুবুজ্জামান আহমেদের মধ্যেই। অপর প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হচ্ছেন তারিকুল ইসলাম ওরফে তুষার।

মঙ্গলবার বিকেলে ভোটের প্রচার-প্রচারণা করতে যান কাশীরাম গ্রামে আনারস প্রতীকের প্রার্থী রাকিবুজ্জামান আহমেদের কর্মীরা। এ সময় সমর্থকদের গতিরোধ করেন অপর প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মাহাবুবুজ্জামান আহমেদ ও তার দুই ছেলে। এ সময় আনারস প্রতীকের কর্মী মেহরাবুর রহমান ওরফে কাজী আদেলকে প্রকাশ্যে থাপ্পড় দেন মাহাবুবুজ্জামান। সে সময় উপস্থিত থাকা রাকিবুজ্জামানের স্ত্রী ও ফুফুসহ নারী কর্মীদের অশ্লীল ভাষায় গালমন্দসহ হুমকি দিয়ে অশোভন আচরণ করেন মাহবুবুজ্জামান আহমেদ।

এদিকে এক প্রার্থীর প্রচার কাজে সরাসরি অপর প্রার্থী বাধা দেওয়ার ঘটনায় উপজেলা জুড়ে তোলপাড় অবস্থার সৃষ্টি হয়। খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে ছুটে যান সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও কালিগঞ্জ থানার ওসি।

ভুক্তভোগী সমর্থক মেহরাবুর রহমান ওরফে কাজী আদেল সাংবাদিকদের জানান, রাকিবুজ্জামান আহমেদের নির্বাচনী কাজ করায় তাকে প্রকাশ্যে সকলের সামনে থাপ্পড় মেরেছেন অপর প্রার্থী মাহাবুবুজ্জামান আহমেদ। এ সময় নারীকর্মীদের অকথ্য ভাষায় গালমন্দও করেন তিনি।

সাবেক সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ ছেলে আনারস প্রতীকের রাকিবুজ্জামান আহমেদ বলেন, নির্বাচনের শুরু থেকেই খুব উগ্র আচরণ দেখিয়ে আসছেন মাহবুবুজ্জামান আহমেদ। আজ কর্মীর ওপর হাত তুলেছেন নিজেই, নারী কর্মীদের অশ্রাব্য ভাষায় গালি দিয়েছেন। এসব বিষয় নিয়ে জেলা রিটার্নিং অফিসার বরাবর অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। আশা করছি তারা তদন্ত করে ঘোড়া মার্কার প্রার্থীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। ‌

অভিযোগের বিষয়ে অভিযুক্ত ঘোড়া প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মাহবুবুজ্জামান আহমেদ বলেন, তাদের অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে, সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও কালিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জহির ইমাম বলেন, খবর পেয়েই তিনি ঘটনাস্থলে যাই। সেখানকার প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে ঘটনার তদন্ত করা হয়েছে। ইতোমধ্যেই আনারস প্রতীকের প্রার্থী রাকিবুজ্জামান আহমেদ একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন যা তদন্তাধীন রয়েছে। আমরা জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে তদন্ত লিপি পাঠাব। 

কালীগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ কবির বলেন, প্রাথমিক তদন্তে ঘটনা সত্যতা পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।