১০ শ্রাবণ, ১৪৩১ - ২৬ জুলাই, ২০২৪ - 26 July, 2024
amader protidin

পীরগঞ্জে শিশু আদম হত্যায় জড়িতদের ফাঁসীর দাবীতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ

আমাদের প্রতিদিন
4 weeks ago
25


পীরগঞ্জ রংপুর প্রতিনিধিঃ

রংপুরের পীরগঞ্জের মিঠিপুর ইউনিয়নের মাদারগঞ্জ হাটে শিশু আদম মিয়া (৪) হত্যায় জড়িতদের ফাঁসির দাবীতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে এলাকার সর্বস্তরের জনগণের ব্যনারে এই মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিভিন্ন গ্রামের প্রায় ৫ সহস্রাধীক লোকের সমাগম ঘটে।

এ সময় পীরগঞ্জ থানা পুলিশের ভুমিকা প্রশ্নবিদ্ধ উল্লেখ করে ওসি’র প্রতি ক্ষোভ প্রকাশসহ ওসির অপসারণ দাবী করে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ বক্তব্য রাখেন। মিঠিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফরহাদ মন্ডল, কমিউনিষ্ট পার্টির উপজেলা সভাপতি সহকারী অধ্যাপক কামরুজ্জামান, মিঠিপুর ইউ.পি আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মাহফুজার রহমান লুলু, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জয়নাল আবেদীন, ইউনিয়নের জাতীয় পার্টির সাবেক সভাপতি গোলাম মওলা, ইউনিয়নের যুবলীগ নেতা আকতারুজ্জামান লাজু, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলির সদস্য ইব্রাহিম মেম্বর, মাদারগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের সহকারী অধ্যাপক উপজেলা বিএনপি নেতা রায়হান কবীর প্রধান, মাদারগঞ্জ নলেজ পাওয়ার কিন্ডার গার্টের অধ্যক্ষ হাসানুর রহমান, মাদারগঞ্জ মীরপুর মৎস্য আড়ত ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মাহবুবার রহমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। 

এছাড়াও নিহত শিশুর বাবা জাকারিয়া ও মা গোলে নুর বেগম, দাদী ৭৭ বছর বয়সি জমিলা বেগম ও জ্যেঠো সুজন মিয়া বক্তব্য রাখেন।  এ সময় নিহতের স্বজনরা কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, আমাদের থানায় নিয়ে গিয়ে শুধু শান্তনা দেয়া হয়। পুলিশ পলাতক আসামীদের ধরছে না। পুলিশ স্বজনপ্রীতি করছে। শিল্পী বেগমকে ৭দিনের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ না করে অসুস্থ দেখিয়ে ১দিন পরেই জেলহাজতে পাঠানো হয়। তারা আসামীদের গ্রেফতারসহ ফাঁসির দাবী জানান।

উল্লেখ্য, ৭ জুন (শুক্রবার) জুমার আজানের কিছু সময় পর মাদারগঞ্জ হাটের পাহাড়াদার একবারপুর দক্ষিণপাড়া গ্রামের জাকারিয়া মিয়ার শিশুপুত্র চার বছরের আদম হঠাৎ উঠাও হয়। পরদিন ৮ জুন (শনিবার) ৩৪ ঘন্টা পর রাত ১১ টার দিকে সন্দেহভাজন দম্পতি’র বাড়ির সন্নিকটে মৃত আব্দুর জব্বারের ছেলে রানজু মিয়ার পুকুরে নিঁখোজ শিশু আদমের লাশ ভেসে উঠে। এ ঘটনায় প্রতিবেশি দম্পত্তিকে সন্দেহ থেকে গ্রামবাসী-পুলিশ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। নিহত শিশুর পরিবার দাবী মতে পুর্ব শক্রতার জের ধরে নিখোঁজ শিশুটিতে হত্যার পর লাশ পুকুরে ফেলে দিয়েছে প্রতিবেশি মোকসেদ আলী ও তার স্ত্রী শিল্পী বেগম।

পুলিশের প্রতি ক্ষোভ ও ওসির অপসারণ দাবী প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে ওসি আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, যুগে যুগে জনগণ সাধারণত পুলিশকেই দোষারোপ করে আসছে, পুলিশ ১০০ ভাগ নিখুঁত কাজ করলেও পুলিশকে মানুষ দোষারোপ করে। কে বা কারা ওসির অপসারণ চাচ্ছে এটা দেখার বিষয় না। ময়নাতদন্তের রিপোর্টের পরই আসল রহস্য উন্মোচিত হবে। বিজ্ঞ আদালতের নিদের্শনায় ৭দিনের রিমান্ড শেষে শিল্পী বেগমকে জেলহাজতে পাঠানো হয়। রিমান্ডে প্রাপ্ত তথ্য অনুয়ায়ী মামলার তদন্তকাজ চলছে। পলাতকদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

সর্বশেষ

জনপ্রিয়