৬ শ্রাবণ, ১৪৩১ - ২১ জুলাই, ২০২৪ - 21 July, 2024
amader protidin

চিলমারীতে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি অব্যাহত, ৫হাজার পরিবার পানি বন্দি

আমাদের প্রতিদিন
2 weeks ago
32


চিলমারী(কুড়িগ্রাম)প্রতিনিধিঃ

কুড়িগ্রামের চিলমারীতে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢল ও কয়েকদিনের টানা বর্ষণে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ২৬সেঃ মিঃ উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।এতে নিম্নাঞ্চল সমুহের প্রায় ৫হাজার পরিবার পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। তলিয়ে গেছে হাজার হাজার একর জমির পাটসহ বিভিন্ন ফসল।পানি বৃদ্ধির ফলে পানি বন্ধি হয়ে পড়ছে ৩৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

জানাগেছে,ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় উপজেলার নিম্নাঞ্চলসমুহ প্লাবিত হয়ে পড়েছে।এতে অষ্টমীরচর ইউনিয়নের খোর্দ বাশপাতার,খামারবাশপাতার, ছালিপাড়া,চরমুদাফৎ কালিকাপুর ও নটার কান্দি এলাকাসমুহের প্রায় দেড় হাজার পরিবার,নয়ারহাট ইউনিয়নের বজরা দিয়ারখাতা,নাইয়ারচর,উত্তর খাউরিয়া পশ্চিমপাড়া ও খেরুয়া নতুন গ্রাম এলাকা সমুহের প্রায় ৫শতাধিক পরিবার,রমনা ইউনিয়নের ভটÍপাড়া,সাতঘরিপাড়া,মিস্ত্রিপাড়া এলাকাসমুহে প্রায় ৫শ পরিবার, চিলমারী ইউনিয়নের ৫শ পরিবার এবং রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধের পূর্বদিকে নয়াবস,মজারটারী, চড়েয়াপাড়া,বাগানবাড়ী,জকরিটারী,তেতুলকান্দি,দ.মাঝিপাড়া এলাকাসমুহে প্রায় ২হাজার পরিবার মিলে মোট প্রায় ৫ হাজার পরিবার পানি বন্দি হয়ে পড়েছে।এছাড়াও চরাঞ্চলসমুহের হাজার হাজার একর জমির পাটসহ বিভিন্ন ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে।

এদিকে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় উপজেলার ৩৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয় পানি বন্দি হয়ে পড়ায় পাঠ দান কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।

রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল ইসলাম জানান, নদী ভাঙ্গন ও বন্যা কবলিত লোকজনের সাথে সার্বক্ষনিক যোগাযোগ রাখা হচ্ছে।পাউবো ব্রহ্মপুত্র চিলমারী পয়েন্টের গেজ রিডার জোবায়ের হোসেন জনি জানান,গত ২৪ঘন্টায় ব্রহ্মপুত্র নদে চিলমারী পয়েন্টে পানি ৪০সে.মি.বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ২৬সে.মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানিবন্দি মানুষের মাঝে এখন পর্যন্ত সরকারী কিংবা বে—সরকারীভাবে কোন সাহায্য দেয়া হয়নি।

উপজেলা কৃষি অফিসার প্রণয় বিষাণ দাস জানান,উপজেলায় মোট ৩হাজার ১৬০হেক্টর জমিতে পাট চাষ হয়েছে।বর্তমানে পানি বৃদ্ধির ফলে ১৫০হেক্টর জমির পাট সম্পূর্ণ নিমজ্জিত হয়েছে।এছাড়াও আউশ ধান ২০ হেক্টর,আমন বীজতলা ২৫ হেক্টর,শাকসব্জি২০ হেক্টর,মরিচ—৫হেক্টর,চিনা—৫হেক্টর ও তিল—১০হেক্টরসহ মোট ২৩৫হেক্টর জমির ফসল পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার(ভারপ্রাপ্ত)মো.জাহিদুর রহমান জানান,৩৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয় পানি বন্দি হওয়ায় আগামীকাল থেকে বিদ্যালয়গুলি ছুটি ঘোষনা করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো.মিনহাজুল ইসলাম বলেন,হঠাৎ পানি বৃদ্ধি পেয়ে কিছু কিছু এলাকা প্লাবিত হয়েছে, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সবসময় খোঁজ খবর রাখা হচ্ছে।রমনা,চিলমারী ও নয়ারহাট ইউনিয়নসমুহের পানি বন্দি মানুষের জন্য ২মে.টন করে জিআর এর চাল দেয়া হয়েছে।এছাড়াও পানি বন্দি পরিবারের তালিকা করার জন্য চেয়ারম্যানদের বলা হয়েছে।

সর্বশেষ

জনপ্রিয়