৬ শ্রাবণ, ১৪৩১ - ২১ জুলাই, ২০২৪ - 21 July, 2024
amader protidin

কাউনিয়ায় বাড়ছে তিস্তার পানি: চার শতাধিক পরিবার পানি বন্দি

আমাদের প্রতিদিন
2 weeks ago
99


কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি:

রংপুরের কাউনিয়ায় উজানের ধেয়ে আসা ঢলে হু হু করে বাড়ছে তিস্তা নদীর পানি। পাশাপাশি উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চল দিয়ে বয়ে যাওয়া তিস্তার শাখা নদী সহ মানস নদীর পানিও বাড়ছে। পানি বন্দি হয়ে পড়েছে নদীর তীরবর্তী ও চরাঞ্চল গ্রামের চার শতাধিক পরিবার। অনেকেই তাদের শিশু বৃদ্ধ ও গবাদি পশু উচু স্থানে সরিয়ে নিয়েয়ে। ক্লাসে পাঠদান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে চরাঞ্চলের একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম জানান, বেলা ১২ টায় থেকে তিস্তা নদীর কাউনিয়া পয়েন্টে বিপৎসীমার দশমিক ১১ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এর আগে সকাল ৬ টায় দশমিক ১৩ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে পানি প্রবাহ রেকর্ড করা হয়েছে। কাউনিয়া পয়েন্টে বিপদসীমা ২৯ দশমিক ৩১ সেন্টিমিটার ধরা হয়।

অন্যদিকে ডালিয়া ব্যারাজের পয়েন্টে সোমবার সকাল ৯ টায় পানি প্রবাহ রেকর্ড করা হয় ৫২ দশমিক ০২ সেন্টিমিটার, যা বিপৎসীমার দশমিক ১৩ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ পয়েন্টে ৫২ দশমিক ১৫ সেন্টিমিটার ধরা হয়।

পাউবো এই কর্মকর্তা বলেন, ভারী বৃষ্টিপাত এবং উজানে ঢলের কারণে ডালিয়া ব্যারাজের পয়েন্টে তিস্তার পানি বাড়তে শুরু করেছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ডালিয়া ব্যারাজের সব গেট খুলে রাখা হয়েছে। উজান থেকে ধেয়ে আসা ঢলে ভাটির অঞ্চল কাউনিয়ায় তিস্তার পানি বাড়তে শুরু করেছে। বিকেলের দিকে কাউনিয়া পয়েন্টে তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করে স্বল্প মেয়াদী বন্যায় নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হতে পারে। এরই মধ্যে নদীর তীরবর্তী ও নিন্মাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

এদিকে নদনদীর পানি অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় কাউনিয়া উপজেলার বিভিন্ন চরগুলো তলিয়ে গেছে। পানির স্রোতে ভেঙ্গে গেছে তিস্তার শাখা মানাস নদীতে বাঁশের সাঁকো।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার (পিআইও) আহসান হাবিব সরকার জানান, উপজেলার শহীদবাগ, টেপামধুপুর. বালাপাড় ও হারাগাছ ইউনিয়নের নদীর তীরবতী এবং চরাঞ্চল গ্রাম এলাকা প্লাবিত হয়েছে। পানি বন্দি হয়ে পড়েছে প্রায় চার শতাধিক পরিবার।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শায়লা জেসমিন সাঈদ বলেন, চরঢুষমারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উঠান প্লাবিত হওয়ায় ক্লাসে পাঠদান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।  বিদ্যালয়টি ২০১২ সালে নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যায়। এরপর স্থানীয় এক বাড়ীতে বিদ্যালয়ের কার্যক্রম চালু রাখা হয়েছে। শনিবার রাত থেকে তিস্তা নদীর পানি অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় চর ঢুষমারা গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় সেখানে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উঠানে পানি উঠেছে। শিক্ষকরা ক্লাসে পাঠদান বন্ধ করে চলে এসেছে। বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

কাউনিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মহিদুল হক বলেন, তিস্তা নদীর বৃদ্ধির বিষয়ে আমরা সার্বক্ষণিক খোঁজখবর রাখছি। সরকারিভাবে সব ধরনের আগাম প্রস্তুতি নেওয়া আছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে সার্বক্ষণিক নদীপাড়ের পরিস্থিতির খোঁজখবর রাখা হচ্ছে এবং নদীর তীরবর্তী পানি বন্দিদের তালিকা করা হচ্ছে।

 

সর্বশেষ

জনপ্রিয়