৯ ফাল্গুন, ১৪৩০ - ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ - 21 February, 2024
amader protidin

দিনাজপুরের বিরলে বৃদ্ধা কামবালা’র বাসায় গিয়ে নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি

আমাদের প্রতিদিন
3 weeks ago
95


দিনাজপুর প্রতিনিধি:

“দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমার কাছে সবচেয়ে পবিত্র এবং দামী ভোটার শ্রীমতি কামবালা। কারণ নব্বইয়োর্ধ বছর বয়সেও তিনি নৌকা মার্কার নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছেন এবং আমাকে আশির্বাদ দিয়েছেন। এরকম একজন মানুষ যখন কাউকে আশির্বাদ দেন, তখন সৃষ্টিকর্তা তার দিতে চোখ তুলে তাকান এবং তাকিয়েছেন। এরকম একজন পবিত্র ভোটারের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতেই আমি এখানে এসেছি”।

রোববার (২৮ জানুয়ারী) দুপুরে দিনাজপুরের বিরল উপজেলার গোদাবাড়ী গ্রামে ৯০ বছর বয়সের বৃদ্ধা কামবালার বাড়ীতে গিয়ে এমন কথা জানান দিনাজপুর—২(বিরল—বোচাগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

নৌ প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলার মানুষের জন্য যে কাজ করছেন, এটা প্রতিফলিত হয়েছে নব্বইয়োর্ধ এই বৃদ্ধার মধ্যে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ভালোবেসে এবং নৌকার প্রতি ভালোবাসা, তার বার্ধক্যকেও হার মানাতে পারেনি। এই বয়সেও তিনি নৌকা মার্কার প্রচারণায় অংশ নিয়েছিলেন। এটা আমাদের জন্য একটি শিক্ষনীয় বিষয়। সত্য এবং সুন্দরের জন্য কোন কিছু যে আটকায় না, কামবালা সেটা প্রমাণ করেছেন।

নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী রোববার দুপুরে ওই বৃদ্ধার বাসায় গেলে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। খালিদ মাহমুদ চৌধুরী ৯০ বছরের বৃদ্ধা কামবালাকে মা হিসেবে আখ্যায়িত করে শ্রদ্ধা স্বরূপ ফুলের মালা পড়িয়ে দেন। এসময় কামবালাও প্রতিমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা স্বরূপ পড়িয়ে দেন ফুলের মালা। প্রতিমন্ত্রী আসার খবরে কামবালা বাসায় শীতের পিঠা—পুলির আয়োজন করেন। খালিদ মাহমুদ চৌধুরী তাতে অংশ নেন। সব মিলিয়ে এক আনন্দঘন পরিবেশ বিরাজ করে বিরল উপজেলার গোদাবাড়ী গ্রামে বৃদ্ধা কামবালার বাড়ীতে। এসময় উপস্থিত ছিলেন বিরল পৌরসভার মেয়র আলহাজ¦ সবুজার সিদ্দিক সাগর, বিরল উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক রমা কান্ত রায় প্রমুখ।

উল্লেখ্য, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রচারণার সময় ৯০ বছর বয়সের বৃদ্ধা কামবালা নৌকা মার্কার নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেন। তিনি উল্টো ওই আসনের নৌকা মার্কার প্রার্থী খালিদ মাহমুদ চৌধুরীর কাছেই নৌকা মার্কার ভোট প্রার্থনা করেন।

গোদাবাড়ী গ্রামের বৃদ্ধা কামবালার ৪ ছেলের মধ্যে এক ছেলে মারা গেছেন। বর্তমানে আছেন ৩ ছেলে, এক মেয়ে ও নাতি—নাতনী। স্বামী মারা গেছেন অনেক আগেই।

 

সর্বশেষ

জনপ্রিয়