৯ ফাল্গুন, ১৪৩০ - ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ - 21 February, 2024
amader protidin

কুড়িগ্রামে মৃদু শৈত্য প্রবাহ: প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ  থাকলেও খুলে দেয়া হয়েছে মাধ্যমিক বিদ্যালয়

আমাদের প্রতিদিন
3 weeks ago
44


কুড়িগ্রাম অফিস:

শৈত্য প্রবাহের কারণে বিদ্যালয় বন্ধের সরকারি নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে কুড়িগ্রামের জেলা শিক্ষা অফিসার বিদ্যালয় খোলার নির্দেশ দিয়েছেন। তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে থাকলেও বিদ্যালয় খোলা রাখাকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন কর্তৃপক্ষ। তবে জেলার প্রায় বারো শতাধিক প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ রয়েছে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নবেজ উদ্দিন বলেন, সরকারের জারিকৃত নির্দেশনা মোতাবেক তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রী সেলসিয়াসের নীচে নামায় গত ১৮জানুয়ারী প্রাথমিক পর্যায়ের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের আদেশ দেয়া হয়। এখনও তাপমাত্রা ৯ ডিগ্রী সেলসিয়াসের নীচে তাই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে।

কিন্তু জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার ২৮ তারিখের স্বাক্ষরিত চিঠি পেয়ে ২৯ জানুয়ারি (সোমবার) জেলার সব ক’টি মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পাঠদান কার্যক্রম শুরু করেছে। তবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি তুলনামূলক কম হয়েছে।

জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শামছুল আলম জানান, তাপমাত্রা কমে যাওয়ার কারণে গত ১৮ জানুয়ারী থেকে মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। তাপমাত্র কম থাকলেও গত ২দিন ধরে দিনে সূর্যের আলো সকাল ৮টার পর থেকে দেখা দেওয়ায় এবং সূর্যেও আলোর উত্তাপ থাকায় উর্ধতন কতৃর্পক্ষের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে স্কুল খুলে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকরা বিষয়টিকে ইতিবাচক ভাবে দেখছেন।

কুড়িগ্রামের রাজারহাট আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুবল চন্দ্র সরকার বলেন, গত ১২ দিন থেকে আবহাওয়া ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে থাকছে। সোমবার সকাল ৯টায় জেলার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এছাড়া এ মাসের ৩১ তারিখ পর্যন্ত তাপমাত্রা নিম্নগামী থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে। তারপর তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেতে পারে বলে তিনি জানান।

কুড়িগ্রাম সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী সুমাইয়া জানায়, তীব্র ঠান্ডার কারণে স্কুল বন্ধ ছিল। ঠান্ডা কমে যাওয়ায় স্কুল খুলেছে। ঠান্ডা আছে তবে কুয়াশার নেই তাই স্কুলে আসতে সমস্যা হয়নি।

বিভিন্ন বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থীর অভিভাবকের সাথে কথা হলে তারা জানান, ঠান্ডা আছে তবে কমেছে কুয়াশা। বিদ্যালয় খোলার নির্দেশনা পেয়ে সন্তানদের তারা নিয়ে এসেছেন বিদ্যালয়ে। সরকারি নির্দেশনা মানতে তাদের কোন আপত্তি নেই।

এর আগে সরকারি নিশেধাজ্ঞা ছিল ১০ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে তাপমাত্রা বিরাজমান থাকলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে হবে। সে নির্দেশনা অনুযায়ী  ১৮ জানুয়ারি জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা তাপমাত্রা ৯ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে আসা উল্লেখ করে চিঠি দিয়ে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত মাধ্যমিক  পর্যায়ের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেন। কিন্তু তাপমাত্রা এখনও ৯ডিগ্রি সেলসিয়াস থাকার পরও তিনি গতকাল ২৮ জানুয়ারি ক্লাস শুরুর সময় পিছিয়ে দিয়ে চিঠির মাধ্যমে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার নির্দেশ দেন। তবে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নতুন করে নির্দিশনা না দেয়ায় প্রাথমিক পর্যায়ের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা রয়েছে।

কুড়িগ্রাম কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ হারুন—অর—রশীদ জানান,  জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার নির্দেশক্রমে মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হয়েছে। রৌদ্রজ্জল আবহাওয়া বিরাজ করায় শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়েছে। শিক্ষার্থী উপস্থিতি কম।

 

সর্বশেষ

জনপ্রিয়