১১ বৈশাখ, ১৪৩১ - ২৪ এপ্রিল, ২০২৪ - 24 April, 2024
amader protidin

কাউনিয়ায় টাকা নিয়ে প্রাকটিক্যালে নম্বর দেয়ার প্রধান শিক্ষকের ভিডিও ভাইরাল

আমাদের প্রতিদিন
1 month ago
98


কাউনিয়া(রংপুর)প্রতিনিধি:

রংপুরের কাউনিয়া দ্বিমুখী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তোজাম্মেল এসএসসি পরীক্ষার্থীদের নিকট হতে প্র্যাকটিক্যাল পরীক্ষায় ২৫ নাম্বার দেওয়ার জন্য ২ হাজার করে টাকা গ্রহণের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। পরীক্ষার্থীদের নিকট হতে টাকা নেওয়ার ঘটনাটি জানতে পেরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওই প্রধান শিক্ষককে শোকজ নোটিশ করেছেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যায়, ২১ মার্চ বৃহস্পতিবার কাউনিয়া দ্বিমুখী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তোজাম্মেল হক কক্ষে বসে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের নিকট হতে  টাকা গ্রহণ করে একটি খাতার ভেতরে রাখছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বেশ কয়েকজন  পরীক্ষার্থী জানান, ইতিপূর্বের পরীক্ষাগুলোতেও    স্যার প্রধান শিক্ষক আমাদের কাছে ব্যবহারিকে বেশি নম্বর দেওয়ার কথা বলে টাকা গ্রহণ করেছেন। স্যার গরিব, মেধাবী কিংবা মধ্যবিত্ত ছাত্রী বোঝেন না। সবার কাছে থেকেই তিনি টাকা নেন। টাকা ছাড়া তিনি প্র্যাকটিক্যালে নম্বর দেন না।

ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, প্রধান শিক্ষক তোজাম্মেল হক রংপুর নগরীতে থেকে বিলাসবহুল জীবন যাপন করেন। তিনি উপজেলায় বসবাস করেন না। ইতিপূর্বেও প্রধান শিক্ষক এমন কিছু অনিয়ম করেছেন, যা কর্তৃপক্ষ জানেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষ জেনেও তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি।

এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক তোজাম্মেল হক সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ভিডিওটি আমাকে ফাঁসানোর জন্য করা হয়েছে। টাকা নেওয়ার বিষয়টি সত্য নয়।

এদিকে  বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাকিম সরদার জানান, ওই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে এর আগেও অনেক অভিযোগের কথা আমরা জানতে পেরেছি। বিষয়টি আমরা ইউএনওকে জানিয়েছি। যেহেতু পরীক্ষা কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। আর নাম্বার দেওয়ার জন্য পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা নেওয়া ভিডিওটি পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট তাই ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার এখতিয়ার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার।

এ বিষয়ে কাউনিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহিদুল হক জানান, বিষয়টি জানার পর ওই প্রধান শিক্ষককে শোকজ করা হয়েছে। এরপরেও ঘটনাটি নিয়ে তদন্ত চলছে। ওই শিক্ষক দোষী প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

সর্বশেষ

জনপ্রিয়