২১ ফাল্গুন, ১৪৩০ - ০৪ মার্চ, ২০২৪ - 04 March, 2024
amader protidin

পীরগঞ্জে বিএমডিএ সেচ পাম্পের আওতায় সুবিধা পাচ্ছে প্রায় আড়াই হাজার কৃষক

আমাদের প্রতিদিন
11 months ago
139


পীরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি:

বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের কার্যক্রমঃ  রংপুর জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার বরেন্দ্র অঞ্চলে ভূ-গর্ভস্থ ও ভূ-উপরিস্থ পানি দ্বারা বছরব্যাপি সেচ সুবিধা চালু হওয়ায় এলাকার এক ফসলি জমি তিন ফসলি জমিতে রুপান্তরিত হয়েছে। এ ব্যবস্থার ফলে উপজেলায়  ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে 'বিএমডিএ' কর্তৃক পরিচালিত ১১০ টি সেচ যন্ত্র দ্বারা উপকৃত হচ্ছে কৃষক। এর মধ্যে গভীর নলকূপ ৯৭ টি, বিদ্যুৎ চালিত এলএলপি ০৭ টি এবং সোলার চালিত ৬ টি এলএলপির আওতায়  কৃষক সেচ পাচ্ছে।

পীরগঞ্জ উপজেলা বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সেচ পাম্পের অনুকূলে  ৪২২৫ হেক্টর জমিতে রবি ফসলে সেচ নিশ্চিত করছে। এর মধ্যে ২৪ হাজার ৮৭ হেক্টর জমিতে বোরোধানের চাষ করা হয়েছে।

উপজেলা কৃষি বিভাগ জানান, ২২ হাজার ৮ শত ৫০ হেক্টর বোরোধান চাষের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে

এলএলপি চালিত সেচ পাম্প ম্যানেজার উপজেলার সুরানন্দপুর গ্রামের জিল্লুর রহমান বলছেন, আমি এবছর নতুন পাম্প চালু করেছি এবং আমার সেচ পাম্পের অনুকূলে সকল কৃষক সেচ ব্যবস্থা দেখে খুশি। কৃষকদের কৃষি জমিতে কম খরচে যখন প্রয়োজন তখন সেচ সুবিধা পাচ্ছে।  যে কারনে এলএলপি র আওতায় সকল কৃষক আনন্দিত।

একই এলাকার বড়বদনাপাড়া  করতোয়া নদীর টোংরারদহ এলএলপি র ম্যানেজার মেহেদী হাসান মানিক জানান, গত বছর তাদের সেচ পাম্পে আওতায় জমির পরিমাণ কম ছিল এবং সুবিধা পেয়েছে ভালো যে কারনে এবছর অনেক কৃষক তাদের কৃষি জমিতে সেচ গ্রহন করছে।

সোমবার উপজেলার বেশ কিছু এলাকা ঘুরে কৃষকদের সাথে কথা হলে তারা বলছে, সকল সেচ পাম্পের অধিনে কৃষি আবাদ করা হয়েছে। সবধরনের ফসলের চাষ ভালো হয়েছে। কোনো প্রকার বালা মসিবত না হলে অধিক হারে ফলন পাওয়া যাবে।

সেচ পাম্পের অনুকূলে ধান চাষি হাবিল, ফজলু,এরশাদ ও নজরুল মিয়া বলছেন, এবছর ধানের আবাদ অনেক ভালো হয়েছে। আবহাওয়া কৃষকের অনুকূলে থাকলে এবছর বাম্পার ফলনের আশা করছে।

উপজেলা বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সহকারী প্রকৌশলী মোঃ জামিনুর রহমান বলেন, ১১০ টি সেচ যন্ত্রের মাধ্যমে উপজেলার কৃষি জমতে সেচ প্রদান করা হচ্ছে। বিএমডিএ অফিসের একজন উপসহকারী প্রকৌশলী এবং দুইজন মেকানিকের মাধ্যমে মাঠ পর্যায়ে সেচ সেবা দেয়া হচ্ছে। চলতি বোরো মৌসুমে সুষ্ঠুভাবে সেচ সুবিধা নিশ্চিত করার জন্য বিএমডিএ অফিস সার্বক্ষণিক তৎপর রয়েছে।

সর্বশেষ

জনপ্রিয়