১৪ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ - ২৮ মে, ২০২৪ - 28 May, 2024
amader protidin

চিলমারীতে ব্রহ্মপুত্রের ডানতীর রক্ষা  বাঁধে ধস ভাঙন আতঙ্কে নদপাড়ের মানুষ

আমাদের প্রতিদিন
8 months ago
502


চিলমারী(কুড়িগ্রাম)প্রতিনিধিঃ

কুড়িগ্রামের চিলমারীতে ব্রহ্মপুত্র নদের ডান তীর রক্ষা প্রকল্পের পাউবোর বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধে ধস দেখা দিয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার কাচকোল সড়কটারী এলাকার পাউবো বাঁধের প্রায় ১৫মিটার জায়গায় এ ধস দেখা যায়। ১সপ্তাহে ২জায়গায় বাঁধ ধসে যাওয়াকে ঘিরে চরম আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন এলাকাবাসী।

জানাগেছে,ব্রহ্মপুত্র নদের কড়াল গ্রাস থেকে চিলমারীকে রক্ষার জন্য ডানতীর রক্ষা প্রকল্পের মাধ্যমের নদের ডানতীর ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ রাস্তাটি বেøাক পিচিং করা হয়। প্রকল্পের আওতায় উপজেলার রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের কাচকোল সড়কটারী এলাকার কাজ সম্পন্ন করা হয় ২০১৭-১৮ সালে। পরবর্তীতে কয়েক দফা পিচিংয়ে ধস দেখা দিলে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্বাবধানে তা মেরামত করা হয়। সম্প্রতি নদের পানি বৃদ্ধির ফলে আজ বৃহস্পতিবার সকালে হঠাৎ করে কাচকোল সড়কটারী এলাকায় প্রায় ১৫মিটার জায়গা ধসে যায়। কয়েকদিন আগে ওই এলাকার উত্তরেও ধস দেখা দিয়েছিল বলে জানা গেছে। ১সপ্তাহের ব্যবধানে দুই জায়গায় ধস দেখা দেয়ায় উপজেলা রক্ষার গোটা বাঁধটি হুমকির মুখে পড়ে প্রকল্পের উদ্দেশ্য ভেস্তে যেতে বসেছে বলে এলাকাবাসীর দাবী। একের পর এক জায়গায় ধসের সৃষ্টি হওয়ায় নিম্নমানের কাজকে দায়ী করছেন এলাকাবাসী।১সপ্তাহের ব্যবধানে ২জায়গায় বøক ও পিচিং ধসে যাওয়ার ঘটনায় চরমভাবে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন বার বার নদী ভাঙ্গনের শিকার হওয়া নদী তীরবর্তি মানুষ।

সরেজমিনে বৃহস্পতিবার বিকেলে ধসে যাওয়া কাঁচকোল সড়কটারী এলাকার গিয়ে দেখা যায়,প্রায় ১৫মিটার এলাকার পিচিং ধসে গেছে। সেখানে পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্বাবধানে বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলা হচ্ছে। এসময় পাশ্ববর্তী বাড়ীর মালিক মো.ফুল মিয়া জানান,সকাল সাড়ে ৯টার দিকে আমার নাতি আরমান মাছ ধরতে গিয়ে নদীতে ফেনা উঠতে দেখে আমাকে ডাকছিল।এসময় দৌড়ে গিয়ে দেখি রাস্তার পিচিং ধসে যাচ্ছে।তাৎক্ষনিক পানি উন্নয়ন বোর্ডের বিভিন্ন ব্যাক্তিকে ফোন দিয়ে বিষয়টি জানার কথা বলেন তিনি।

ধসে যাওয়া এলাকার আন্জুয়ারা বেগম,নুর ছলিমা বেগম,কাজলী আক্তারসহ অনেকে বলেন,নদীর পানি বাড়ায় ডান তীর ঘেষে প্রচুর ধার (স্রত) পড়েছে। আমরা রাতে ঘুমাতে পারি না। কখন যে রাস্তা ধসে আমরা নদীতে ভেসে চলে যাই সে চিন্তায় সারারাত নদী পাহারা দিতে হয়।

এব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ড কুড়িগ্রামের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী আব্দুল কাদের এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, কাচকোল এলাকায় একটি জায়গায় ধস দেখা দিয়েছে। আমরা তাৎক্ষণিক মাঠে গিয়ে সেখানে জিও ব্যাগ ফেলার কাজ শুরু করেছি। ভাঙন ঠেকাতে যা করা দরকার তা করা হবে বলে জানান তিনি।

সর্বশেষ

জনপ্রিয়