৬ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ - ২১ মে, ২০২৪ - 21 May, 2024
amader protidin

রংপুরের বিন ওমর হাসপাতালের এমডি’র বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ

আমাদের প্রতিদিন
2 weeks ago
82


                 টাকা ফেরত চেয়ে লিগ্যাল নোটিশ ও মামলা দায়েরের প্রস্তুতি

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রংপুর নগরীতে বিন ওমর হাসপাতাল প্রাইভেট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো: ওমর ফারুকের বিরুদ্ধে শেয়ার হোল্ডারদের অর্থ আত্মসাত, মুনাফা না দেয়া, নতুন করে বিভিন্ন প্রলোভনে অর্থ সংগ্রহ সহ রোগীদের সাথে প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে। নগরীর চেকপোস্ট আরকে রোড এলাকায় অবস্থিত হাসপাতালটি বর্তমানে প্রতারণার আতুঁর ঘরে পরিনত হয়েছে। এছাড়াও হাসপাতালটিতে রোগীর চিকিৎসার নামে হয়রানী, জোরপূর্বক টাকায় আদায় ও অদক্ষ চিকিৎসক দিয়ে পরিচালনার অভিযোগ করেছেন রোগী, স্বজন ও ভুক্তভোগী স্থানীয়রা। সম্প্রতি এক রোগীর মৃত্যুও হয় হলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সাথে রফাদফা করে মিমাংসার অভিযোগ রয়েছে।

এদিকে শেয়ার হোল্ডার পরিচালক মোহাঃ ইনামুল হক মাজেদী তাঁর শেয়ারের টাকা ফেরতসহ মুনাফার জন্য বিন ওমর হাসপাতাল প্রাইভেট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো: ওমর ফারুকের বিরুদ্ধে আবেদন ও লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছে। মামলা দায়ের করার প্রস্তুুতি চলছে বলে জানাগেছে।

ভুক্তভোগী ও লিগ্যাল নোটিশ সূত্রে জানাগেছে, রংপুর নগরীর চেকপোস্ট আরকে রোড এলাকায় অবস্থিত বিন ওমর হাসপাতাল প্রাইভেট লিমিটেডের ব্যবসায়িক স্বার্থে কয়েকজন শেয়ার হোল্ডার নেয়া হবে মর্মে হাসপাতালটির  ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) গাইবান্ধা সদরের মালিবাড়ি লেংরারবাজার এলাকার হোসেন আলীর ছেলে মো: ওমর ফারুক জানালে ভুক্তভোগী রংপুরের শিক্ষক নেতা ও সংগঠক মোহাঃ ইনামুল হক মাজেদী তাঁর এক প্রাক্তন ছাত্র ও বিন ওমর হাসপাতালের শেয়ার হোল্ডার মোশারফ হোসেনের মাধ্যমে ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের ১ তারিখ নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প ও এফিডেফিটের মাধ্যমে দুই লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করেন। যার চুক্তিপত্র এফিডেফিট নং—১৫৪০। চুক্তিপত্রের মাধ্যমে বিনিয়োগকারিকে মাসিক ৫ হাজার টাকা করে ল্যাভাংস দেয়ার প্রতিশ্রম্নতি দেয়া হয়। এছাড়াও আরও কয়েকজনকে শেয়ার বিক্রি করেন। সেই টাকা দিয়ে গ্রামের বাড়ি গাইবান্ধা জেলায় ছাত্রী নিবাস, জমি, বাড়ি, দোকানসহ বিভিন্ন স্থাপনা গড়ে তুলেন। অথচ শেয়ার হোল্টার মোহাঃ ইনামুল হক মাজেদীকে মাসিক মুনাফা দিতে টালবাহনা শুরু করেন। যার কারণে তিনি বিগত ১৩/০২/২৩ ইং তারিখে শেয়ারে টাকা ফেরত প্রত্যাহারের আবেদন করেন। পরবর্তীতে আইনজীবির মাধ্যমে শেয়ারের টাকা ফেরতসহ মুনাফার টাকা উদ্ধারের জন্য ০৮/০৮/২৩ইং ও পরবর্তীতে ১৯/০৩/২৪ ইং তারিখে লিগ্যাল নোটিশ প্রেরণ করেন করেন। নোটিশ পাওয়ার পর টাকা প্রদান করার জন্য কয়েকদফা তারিখ নির্ধারণ করে কালক্ষেপন করেন। এনিয়ে হাসপাতালটিতে চরম অস্তস্তিকর পরিবেশ বিরাজ করছে।

ভুক্তিভোগী মোহাঃ ইনামুল হক মাজেদী বলেন, হাসপাতালটিতে বিনোয়াগ করে মহা ভুল করেছি। মুনাফাও নাই, মুল টাকারও কোন খেঁাজ নাই। এমডিকে বললে বার বার তিনি টালবাহানা করেন। আমি আমার টাকা ফেরত চাই। আমার মতো অনেকেই এমন ভুক্তভোগী বলে তিনি জানান।

শোয়াইব হোসেন নামের অপর এক ভুক্তভোগী বলেন, বিন ওমর হাসপাতাল একটি প্রতারণার কারখানা। এমডি ওমর ফারুক একজন প্রতারক। তার কারণে হাসপাতালটির বেহাল দশা। আমার সাথেও প্রতারণা করেছে। হাসপাতালটির এমডি অভিযুক্ত ওমর ফারুকের সাথে নাম্বারে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। 

 

সর্বশেষ

জনপ্রিয়