৪ আষাঢ়, ১৪৩১ - ১৮ জুন, ২০২৪ - 18 June, 2024
amader protidin

শিশুর প্রতি সহিংসতা ও নির্যাতন বন্ধে কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি প্রদান

আমাদের প্রতিদিন
1 year ago
198


কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: 

শিশুর প্রতি সহিংসতা ও নির্যাতন বন্ধেকার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য ন্যাশনাল চিলড্রেন’স্ টাস্কফোর্স (এনসিটিএফ) কুড়িগ্রাম শাখা জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি প্রদান করেছে।মঙ্গলবার দুপুরে এনসিটিএফ কুড়িগ্রাম জেলা শাখার সদস্য ও ইয়েস বাংলাদেশের প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এ স্মারকলিপি প্রদান করে।

এনসিটিএফ কুড়িগ্রাম জেলা শাখার সভাপতি ইয়াসির আরাফাত স্বাক্ষরিত স্মারকলিপিতে বলা হয়, ২০২০ সালের জুলাই মাস থেকে ২০২২ সালের জুন মাস পর্যন্ত এই সময়ে এনসিটিএফ-এর শিশু গবেষক এবং মিডিয়া মনিটরিং ভলান্টিয়ারদের দেওয়া তথ্যমতে সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে দিনদিন শিশুর প্রতি সহিংসতা এবং নির্যাতন বৃদ্ধি পাচ্ছে। সারাদেশে শতাধিক শিশু নানা রকম নির্যাতনের শিকার হয়েছে। তারা তাদের পরিবার এর কারো দ্বারা কোনো না কোনোভাবে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছে। এসময় শিশু ধর্ষণ,গণ ধর্ষণ, ধর্ষণের পর হত্যা, যৌননির্যাতন, পর্ণোগ্রাফি, অপহরণ, অপহরণের পর হত্যা, রাজনৈতিক সহিংসতায় নির্যাতনের শিকার, খুন, পিতা-মাতার দ্বারা হত্যা সহ নানা রকম শিশু নির্যাতনের ঘটনা দেখাযায়। কোভিড-১৯ চলাকালীন সময়ে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন এর নারী ও শিশু নির্যাতন বিষয়ক এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৬৯৮ জন শিশু মহামারি চলাকালীন সময়ে বিভিন্ন ধরণের নির্যাতনের শিকার হয়েছে। যারমধ্যে ২০২০ সালের জুনমাস থেকে ২০২১ সালের মে মাস পর্যন্ত ২১৬১ জন শিশু শারিরীক শাস্তির শিকার হয়েছে। এর মধ্যে ৬১% শিশু ডমেস্টিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে।

একইভাবে বর্তমানে কুড়িগ্রামের শিশু নির্যাতন ও শিশু শ্রম দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এছাড়াও কুড়িগ্রামে পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু,অপ্রাপ্ত বয়সে মাদক সেবন বেড়েই চলছে। এনসিটিএফ এর মাধ্যমে কুড়িগ্রাম জেলারসকল শিশুর পক্ষ থেকে শিশুুদের প্রতি সহিংসতা ও শিশু নির্যাতনের তীব্র নিন্দা জানানো হয়।

ন্যাশনাল চিলড্রেন’স্ টাস্কফোর্স (এনসিটিএফ) সারাদেশের শিশুদের পক্ষ থেকে দেশে প্রচলিত বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন-২০১৭ এবং শিশু আইন-২০১৩ এর সঠিক ও কার্যকরী বাস্তবায়নের মাধ্যমে শিশু নির্যাতনকারী ও এর সাথে জড়িত ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জোর দাবীজানায় যাতে ভবিষ্যতে কেউ শিশুদের প্রতি নিষ্ঠুর আচরণ করতে সাহস না পায়।

               

 

সর্বশেষ

জনপ্রিয়