১৬ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ - ৩০ মে, ২০২৪ - 30 May, 2024
amader protidin

হাবিপ্রবি’র সামনে শিক্ষার্থীদের দিনাজপুর-রংপুর মহাসড়ক অবরোধ

আমাদের প্রতিদিন
1 year ago
161


ভাতের প্লেট ১০ টাকা থেকে ১৫ টাকা করায় বাক-বিতন্ডা: শনিবার সকাল থেকেই দোকানপাট বন্ধ

দিনাজপুর প্রতিনিধি:

হোটেলে ভাতের দাম বাড়ানোর জেরে খাবার হোটেলসহ সব দোকানপাট বন্ধ রাখার প্রতিবাদে দিনাজপুর-রংপুর মহাসড়ক দেড় ঘন্টা অবরোধ করেছে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। শনিবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত চলে এই অবরোধ কর্মসূচী। ফলে বন্ধ হয়ে যায় ওই মহাসড়কের যানবাহন। এতে তীব্র গরমে ভোগান্তিতে পড়ে সড়কে চলাচলকারীরা।

শিক্ষার্থীরা জানান, গত শুক্রবার রাতে হাবিপ্রবি সংলগ্ন মিঠুন হোটেলে রাতের খাবার খেতে যান বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী। এসময় হোটেল মালিক ভাতের প্লেট ১০ টাকা থেকে বৃদ্ধি করে ১৫ টাকা দাবী করেন। এতে শিক্ষার্থীদের সাথে হোটেল মালিকের বাক বিতন্ডা শুরু হয়। হোটেল মালিক মিঠুন অভিযোগ করেন, চালের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় ভাতের দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে-বিষয়টি বুঝিয়ে বলার পরও শিক্ষার্থীরা হোটেলের জিনিষপত্র ভাংচুর করে ও খাবার ফেলে দেয়।

এই ঘটনায় শনিবার সকাল থেকে হাবিপ্রবি সংলগ্ন খাবার হোটেলসহ সব দোকানপাট বন্ধ রাখে দোকান মালিকরা। এতে ভোগান্তিতে পড়েন হাবিপ্রবি’র আবাসিক শিক্ষার্থীরা। এরই প্রতিবাদে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বেলা সাড়ে ১১টায় হাবিপ্রবি’র সামনে দিনাজপুর-রংপুর মহাসড়ক অবরোধ করে। এতে বন্ধ হয়ে যায় দিনাজপুর থেকে রংপুর, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়, নীলফামারীসহ বিভিন্ন জেলার যান চলাচল। মহাসড়কের দু’পাশে আটকা পড়ে শত শত যানবাহন। পীচ ঢালা পথে তীব্র গরমে দুর্ভোগে পড়ে যাত্রী ও সড়কে চলাচলকারীরা।

বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা জানান, হাবিপ্রবি ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের আবাসিক হল চারটি, কিন্তু ডাইনিং চালু আছে মাত্র একটিতে। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন রয়েছে অসংখ্য মেস। এসব শিক্ষার্থীদের অধিকাংশদেরই খাবারের জন্য নির্ভর করতে হয় বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন খাবারের হোটেলগুলোতে। এই সুযোগে হোটেল মালিকরা তাদের জিম্মি করে রেখেছে, দাম ধরছে ইচ্ছামতো। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়সংলগ্ন অন্যান্য দোকানগুলোও ইচ্ছামতো দামে জিনিষপত্র বিক্রি করেন। শিক্ষার্থীরা জানান, এসব বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও দিনাজপুর জেলা প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপি দেয়া হয়েছে, কিন্তু কোন কাজ হয়নি।

এদিকে হোটেল মালিকরা জানান, চালসহ সব জিনিষের দাম বেড়েছে। এ জন্য বাধ্য হয়েই তাদের দাম বাড়াতে হয়েছে।

মহাসড়ক অবরোধ চলকালে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন দিনাজপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) শেখ জিন্নাহ আল মামুন, কোতয়ালী থানার ওসি তানভীরুল ইসলাম, হাবিপ্রবি;র প্রক্টর অধ্যাপক ড. মামুনুর রশিদসহ অন্যান্যরা। তারা শিক্ষার্থীদের বুঝিয়ে দুপুর ১টায় অবরোধ তুলে নেন। ফলে দেড় ঘন্টা বন্ধ থাকার পর দিনাজপুর-রংপুর মহাসড়কে আবার শুরু হয় যান চলাচল।

এর আগে হাবিপ্রবি’র ওয়াজেদ ভবনে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন দোকান মালিক সমিতির নেতাদের নিয়ে বৈঠকে বসে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন প্রক্টর অধ্যাপক ড. মামুনুর রশিদ, ছাত্র উপদেষ্টা ইমরান পারভেজসহ অন্যান্যরা। বৈঠকে প্রাথমিকভাবে সিদ্ধান্ত হয়, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন অধিদপ্তর মুল্য তালিকা নির্ধারণ না করা পর্যন্ত সব পণ্য আগের দামেই বিক্রি করবেন ব্যবসায়ীরা। একই সাথে খাবারের দোকানসহ সব দোকান খুলে দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। এই সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে দুপুর ২টা থেকে হোটেল ও দোকানপাট খোলা শুরু হয়।

উল্লেখ্য, হাবিপ্রবি সংলগ্ন মাছ মাংস, সবজী, নিত্যপণ্য, স্টেশনারি, খাবার হোটেলসহ দুই শতাধিক দোকান রয়েছে।

 

 

সর্বশেষ

জনপ্রিয়