১৪ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ - ২৮ মে, ২০২৪ - 28 May, 2024
amader protidin

বাক ও শারীরিক প্রতিবন্ধি কেরামত আলীর স্বপ্নের নীড় লন্ডভন্ড

আমাদের প্রতিদিন
1 year ago
131


কাউনিয়া(রংপুর)প্রতিনিধি:

রংপুরের কাউনিয়ায় কয়েক মিনিটের কালবৈশাখী ঝড়বাতাসে বাক ও শারীরিক প্রতিবন্ধি কেরামত আলীর গৃহ ঘরটি লন্ডভন্ড হয়ে গেছে। প্রতিবন্ধি ভূমিহীন কেরামত আলীর জমিজিরাত বলতে কিছুই নেই। মহাসড়কের পাশে সরকারি রাস্তার জমিতে ঘর তুলে স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে বসবাস করেন।  ভিক্ষাবৃত্তি করে চলে তার সংসার। গত সোমবার রাতে কালবৈশাখী ঝড়বাতাসে কেরামত আলীর ঘরটি ভেঙ্গে তছনছ হয়ে যায়। অর্থের অভাবে ভেঙ্গে পড়া ঘরটি মেরামত করতে পারছেন না কেরামত আলী। ঘরটি মেরামতের জন্য চায় সাহায্য সহযোগিতা।

ক্ষতিগ্রস্থ কেরামত আলীর বড় ভাই হযরত আলী জানান, তার ছোট ভাই কেরামত আলী জন্মের পর থেকে শারীরিক প্রতিবন্ধি। তাঁর স্ত্রী সেও প্রতিবন্ধি। জমিজমা বলতে কিছুই নাই। স্থানীয় কিছু মানুষের সহযোগিতায় কয়েক বছর আগে পেয়েছিলেন একটি হুইল চেয়ার। এতদিন মানুষের কাছে চেয়ে অন্ন জোগাড় হতো তাঁর। বছর দুইয়ের আগে স্টক করে কথাও বলতে পারে না। এখন বাইরে সাহায্যের জন্যও বের হতে পারেন না। জীবন তারও চেয়ে দুর্বিষহ এখন ছোট ভাইয়ের টিকে থাকার সংগ্রামে।

এদিকে সাংবাদিকদের দেখে কাঁন্নায় ভেঙ্গে পড়েন বাক ও শারীরিক প্রতিবন্ধী কেরামত আলী।শুধু ইশারায় যেন কিছু বলার চেষ্টা করেন ।

কেরামত আলীর স্ত্রী সালেহা বেগম বলেন, তাঁর স্বামী এখন বাইরে সাহায্যের জন্যও বের হতে পারেন না। জীবনে নেমে এসেছে দুর্বিষহ। এমন অবস্থায় যেন মরার উপর খারার ঘা পড়েছে। সোমবার রাতে কালবৈশাখী ঝড়বাতাসে ঘরটি ভেঙ্গে তছনছ হয়ে গেছে। সোমবার রাত থেকে অন্যের ঘরে রাতে থাকি। অর্থের অভাবে ঘরটি মেরামত করতে পারছি না।

স্থানীয় সোরাব হোসেন বলেন, বৃষ্টি ও ঝড়ের তান্ডবে রাস্তার গাছ কেরামত আলীর একমাত্র থাকার ঘরটির উপর পড়লে ঘরটি ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যায়। ঝড়ের সময় কেরামত আলী স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে ভাঙ্গা ঘরে আটকা পড়েছিল। স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে। ঝড়োবাতাস কেরামত আলীর স্বপ্নের নীড় লন্ডভন্ড হয়ে গেছে। সাহায্য সহযোগিতা ছাড়া কেরামত আলীর ঘর মেরামত করা সম্ভব নয়।

প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার (পিআইও) আহসান হাবিব জানান, সোমবার রাতে আকর্ষিক কালবৈশাখী ঝড়ে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে ৫০০টি ঘর ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এছাড়া অসংখ্য গাছ ভেঙ্গে পড়ে। ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা করে জেলা অফিসে পাঠানো হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য বরাদ্দ পাওয়া যায়নি।

 

 

 

সর্বশেষ

জনপ্রিয়